১৩ মিনিটের কলিনড্রেস ঝড়; বিজেএমসিকে উড়িয়ে সেমিতে বসুন্ধরা কিংস

0
689

বহু যুগ আগের কথা। ঢাকার মাঠে দ্রুততম হ্যাটট্রিকের রেকর্ড গড়েছিলেন এক সময়কার তারকা ফুটবলার মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম। ১৯৭৬ সালে মোহামেডানের জার্সিতে শান্তিনগরের বিপক্ষে ২১ মিনিটে হ্যাটট্রিক করেছিলেন তিনি। এরপর আরও অনেকেই ঢাকার মাঠে হ্যাটট্রিক করেছেন। কিন্তু হাফিজ উদ্দিনের রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারেননি। অবশেষে কোস্টারিকার বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলার ড্যানিয়েল কলিনড্রেস বহু বছরের পুরনো রেকর্ডটা ভেঙ্গে দিলেন। বসুন্ধরা কিংসের জার্সিতে ১৩ মিনিটেই হ্যাটট্রিক পূর্ণ করলেন তিনি।

ড্যানিয়েল কলিনড্রেসকে ঘিরে গোল উৎসবে মেতেছে বসুন্ধরা কিংস। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকার ফুটবলে অভিষেক ম্যাচেই নিজেকে চিনিয়েছিলেন কলিনড্রেস। মোহামেডানের বিপক্ষে করেছিলেন একটি গোল। সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছিলেন আরো দুটি। ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলা কোস্টারিকান ফরোয়ার্ড রীতিমতো জ্বলে উঠলেন কোয়ার্টার ফাইনালে। ওয়ালটন ফেডারেশন কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে রবিবার (আজ) ড্যানিয়েল কলিনড্রেসের ঝড়ো গতির হ্যাটট্রিকে ৫-১ গোলে টিম বিজেএমসিকে উড়িয়ে দিয়েছে বসুন্ধরা কিংস। ২০ নভেম্বর টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে শেখ রাসেলের মুখোমুখি হবে তারা। শেখ রাসেল কোয়ার্টার ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনীকে হারিয়ে আগেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে। অন্য সেমিফাইনালে ১৯ নভেম্বর মুখোমুখি হবে শেখ জামাল ও আবাহনী লিমিটেড।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বসুন্ধরা কিংসের সমর্থকদের উৎসব। ছবি: সংগৃহীত

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই দুর্দান্ত গোলে বসুন্ধরা কিংসকে এগিয়ে দেন কোস্টারিকার ফুটবলার। ডি বক্সের বাঁ দিক থেকে মোহাম্মদ ইব্রাহিমের ক্রস বিজেএমসির গোলরক্ষক গ্লাভসে নিতে ব্যর্থ হলে ড্যানিয়েল কলিনড্রেস দুর্দান্ত ভলিতে গোল করেন। বিশ্বকাপ খেলা তারকা ফুটবলারের এটা কেবল সূচনা ছিল। ম্যাচের নবম মিনিটে স্প্যানিশ ডিফেন্ডার জর্জ গোটরের লম্বা পাসে বল পেয়ে কৌশলে অফসাইডের ফাঁদ ভাঙ্গেন কলিনড্রেস। দুই ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন তিনি। ১৪তম মিনিটে মাশুক মিয়া জনির হেডে বাড়ানো বল নিখুঁতভাবে আলতো স্পর্শে বিজেএমসির জালে জড়িয়ে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন কোস্টারিকার এই ফরোয়ার্ড।মাত্র ১৩ মিনিটেই পূরণ করেন হ্যাটট্রিক। ছাড়িয়ে যান হাফিজ উদ্দিনের দীর্ঘদিনের পুরনো রেকর্ড। প্রথমার্ধে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় বসুন্ধরা কিংস।

দ্বিতীয়ার্ধে খেলতে নেমে আরও দুটি গোল করে বসুন্ধরা কিংস। ম্যাচের ৭০তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে সতীর্থের বাড়ানো ক্রসে বল পেয়ে প্লেসিং শটে গোল করে ব্যবধান ৪-০ করেন ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলম সবুজ। ৭৯তম মিনিটে বদলি ফরোয়ার্ড মতিনের গোলে বিজেএমসির কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে বসুন্ধরা কিংস। অবশ্য ৮৬তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্যবধান কমান বিজেএমসির নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড স্যামসন ইলিয়াসু।

কোয়ার্টার ফাইনালে দূরন্ত জয়ে নিজেদের আরও একবার প্রমাণ করল শিরোপার অন্যতম দাবিদার প্রমাণ করল বসুন্ধরা কিংস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here