হারিয়ে যাচ্ছে জাতীয় খেলার ঐতিহ্য

1
711

প্রতিবেদক মোঃ রাজ্জাকুল ইসলামঃ প্রতিটি জাতীর গৌরবের কিছু জায়গা থাকে। যেমন, জাতীয় পতাকা, জাতীয় খেলা, জাতীয় সংগীত, জাতীয় প্রতীক, জাতীয় ফুল, ফল ইত্যাদি। স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশেরও জাতীয় ঐতিহ্যের এমন নিয়ামক রয়েছে। এক সময় এসব উপাদানের সাথে বাঙালি জাতি সত্তার গভীর সম্পর্ক ছিল।

সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে এসব উপাদানের সাথে বাঙ্গালির সম্পর্কটা অনেকটাই তেতো হয়ে গেছে। যেমন, হাডুডু খেলার কথাই ধরা যাক- খেলাটির সাথে বাঙালির সংষ্কৃতির একটা সংযোগ রয়েছে; রয়েছে আবেগ অনুভুতির নিবির সেতু বন্ধন। এদেশের মাটি ও মানুষের সাথে হাডুডু মিশে আছে।

এক সময় গ্রাম-গঞ্জে ঢোল-ঢাক পিটিয়ে খাসি জবাই করে হাডুডু খেলা হত। কালের বিবর্তনে সেই জায়গা থেকে আমরা খেলাটিকে আধুনিকতার রঙ্গে রাঙ্গাতে পারিনি। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে ১৯৭২ সালে হাডুডু খেলার নাম পরিবর্তন করে কাবাডি করা হয় এবং এটিকে জাতীয় খেলার মর্যাদা দাওয়া হয়। ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ অ্যামেচার কাবাডি ফেডারেশনের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৭৪ সালে ভারতের সাথে বাংলাদেশের কাবাডি টেষ্ট খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের কাবাডির উন্নতির কথা চিন্তা করে ১৯৭৮ সালে অ্যামেচার কাবাডি ফেডারেশন গঠিত হয়। ১৯৮০ সালে প্রথম এশিয়ান কাবাডি চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন করা হয়; খেলায় ভারত চ্যাম্পিয়ন ও বাংলাদেশ রানার্সআপ হয়। ২০০৬ সালে কাতারে ও ২০১০ চীনের এশিয়ান গেমস এ বালাদেশ ব্রোঞ্জ জিতে। ২০১৬ সালের বিশ^কাপ কাবাডি খেলার র‌্যাংকিং এ বালাদেশের অবস্থান ৩য়।কাবাডির এমন পরিবর্তন সত্বেও সাধারন মানুষের মনে জায়গা করে নিতে পারছে না। ফুটবল ক্রিকেটের জনপ্রিয়তার সাথে তাল মিলাতে পারছে না এর জনপ্রিয়তা। স্বাধীনতা পরবর্তী সময় ধাপে ধাপে এদেশের ক্রিকেট ফুটবলের যতটা উন্নতি হয়েছে, এর জনপ্রিয়তা যতটা ছড়িয়ে পরেছে ঘরে-ঘরে ঠিক সেভাবে কাবাডি নিয়ে বিজ্ঞান সম্মত গবেষনার মাধ্যমে আরও যুগোপযোগি ও জনবান্দক করার কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি সংশ্লিষ্ট মহল।

কাবাডি ফেডারেশনের কর্মকর্তাদের থানা ও জেলা পর্যায়ে কোন কর্মসূচী গ্রহন করতে দেখা যায় নি। কাবাডির জাতীয় খেলার যথাযথ মর্যাদা তৈরি করার ব্যাপারে ফেডারেশনকে আরও অনেক বেশি আন্তরিক হবার আশা করে খেলাপ্রিয় অনেক সাধারন মানুষ। এখনও আমাদের দেশের গ্রাম বাংলায় এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা কাবাডিকে মনে প্রাণে ভালোবাসে । তাই কাবাডির হারানো গৌরব ঐতিহ্য ফিরে আসুক এই কামনা করে কাবাডি প্রিয় অনেক মানুষ।

পশ্চিমা সংস্কৃতির আগ্রাসন থেকে যেমন মুক্তি পায়নি আমাদের ভাষা, আচার-আচরণ, পোষাক; তেমনি পশ্চিমা খেলা ফুটবল-ক্রিকেট বিশ^ময় খেলাকে প্রাধান্য দিতে গিয়ে যেন আমরা আমাদের জাতিসত্তার ঐতিহ্যকে অবহেলা না করি।

স্পোর্টস নিউজ বিডিঃ রাজ্জাকুল ইসলাম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here