ব্রাজিলে তরূণীকে ধর্ষণ করলেন নেইমার!

0
134

স্টাফ রিপোর্টারঃ মাঠের বাইরের নেতিবাচক শিরোনামে বারবার খবরে পরিণত হওয়া নতুন কোন ঘটনা নয় ব্রাজিলিয়ান পোস্টারবয় নেইমারের। কখনো দর্শকের সঙ্গে বাজে আচরণের কারণে আর কখনো ইঞ্জুরির নাটক করে অথবা কখনো নিজের টিমমেটের সাথে মারামারি করে সমালোচিত হন তিনি।

তবে এবার এমন ঘটনা সামনে এসেছে যেটা যদি প্রমাণিত হয় তাহলে ছাড়িয়ে যেতে পারে অতীতের সমস্ত ঘটনাকে।

নেইমারের বিরুদ্ধে সাও পাওলোতে ধর্ষণের মামলা করেছেন এক নারী। মামলার কারণেই সে নারীর পরিচয় গোপন রেখেছে সাও পাওলো পুলিশ।

শুক্রবার ধর্ষণের পুরো বর্ণনা দিয়ে আনুষ্ঠানিক বুলেটিনের মাধ্যমে এ মামলা দায়ের করেন সে নারী। যেখানে তিনি উল্লেখ করেন গত ১৫ মে প্যারিসের এক হোটেলে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছেন নেইমার। ব্রাজিলিয়ান সংবাদমাধ্যম গ্লোবোস্পোর্টস প্রকাশ করেছে এ খবর।

এদিকে এ মামলার ব্যাপারে এখনো কিছু বলতে রাজি হয়নি নেইমারের প্রেস সহকারী। তার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে মামলার সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজ নিয়ে তবেই কোনো মন্তব্য করা হবে। আসন্ন কোপা আমেরিকার জন্য জাতীয় দলের সঙ্গে বর্তমানে গ্রাঞ্জা কোমারিতে অবস্থান করছেন নেইমার।

সে নারী পুলিশকে জানিয়েছে নেইমার নিজেই তার জন্যে ব্রাজিল-প্যারিস টিকিট এবং হোটেল বুকিং করে। পরে ১৫ মেতে সে নারী প্যারিস পৌঁছান। একইদিন রাতে নেইমারও সে হোটেলে যায়। তখন সে (নেইমার) মদ্যপ অবস্থায় ছিলো এবং সে নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ আচরণ শুরু করে। পরে সে নারী বাঁধা দিলেও জোরপূর্বক যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে নেইমার।

এ মামলার বিষয়ের নেইমারের প্রতিনিধি কোনো মন্তব্য না করলেও তার বাবা নেইমার সিনিয়র এটিকে সাজানো ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তার মতে দুজনের মাঝে সম্মতিসূচক যৌন সম্পর্ক ছিলো। কিন্তু সম্পর্কের বিচ্ছেদ ঘটায় ধর্ষণ মামলা ঠুকে দিয়েছেন সেই নারী।

তাই নিজের ছেলেকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান নেইমার সিনিয়র। তিনি বলেন, ‘এটা এখন কঠিন মুহূর্ত। আমরা যদি এখন আসল ঘটনা জানাতে ব্যর্থ হই, তাহলে বাজে হবে বিষয়টা। তাই আমাদের যদি সে নারীর সঙ্গে নেইমারের ব্যক্তিগত বার্তালাপ প্রকাশ করতে হয়, আমরা তাই করবো।’

এদিকে তদন্তের অংশ হিসেবে প্রাথমিকভাবে সে নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হবে। এরপর শুরু হবে মামলার মূল কার্যক্রম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here