ফিফার বর্ষসেরা লিওনেল মেসি

0
75

রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলারের এওয়ার্ড জিতলেন আর্জেন্টাইন এবং বার্সেলোনার তারকা লিওনেল মেসি। গত বছর সেরা তিনেও ছিলেন না লিওনেল মেসি। এবার লড়াইয়ে ফিরে ‍ফিফা বর্ষসেরা পুরস্কারও জিতে নিলেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও ফেভারিট ভার্জিল ফন ডাইককে হারিয়ে আবারও ফিফার মুকুট পরলেন তিনি।

২০১৫ সালের পর আবারও এই পুরস্কার জিতলেন মেসি। আর আরও একবার ছাড়িয়ে গেলেন রোনালদোকে। শেষ তিন বছরে দুইবার এই পুরস্কার জিতে মেসির সাথে যৌথভাবে সর্বোচ্চবার জেতার রেকর্ড ছিল রোনালদোর। ২০১৬ সালে ফিফার বর্ষসেরা পুরস্কারের নামকরণ করা হয়ে ‘দ্য বেস্ট’। নতুন করে চালু হওয়ার পর প্রথম দুইবার জিতেছিলেন রোনালদো, আর গতবার হাতে উঠেছিল লুকা মদরিচের। তবে ২০১৯ সালটা দারুণ কাটার উপহার স্বরুপই এই পুরস্কার জিতলেন লিওনেল মেসি।

ডাচ এবং লিভারপুল ডিফেন্ডার ভার্জিল ভ্যান ডাইক জিতেছিলেন উয়েফার বর্ষসেরা ফুটবলারের তকমা। আর তখন থেকেই ফিফার বর্ষসেরা হওয়ার দৌড়েও বেশ এগিয়ে ছিলেন তিনি। রোনালদোও ছিলেন আলোচনায়। স্পেন থেকে ইতালিতে গিয়েও পারফরম্যান্সের ধারা সচল রেখেছেন তিনি। গত মৌসুমে জুভেন্টাসকে জিতিয়েছেন লিগ শিরোপা। অন্যদিকে জাতীয় দল পর্তুগালের উয়েফা নেশনস লিগ জয়ের পথে রেখেছিলেন কার্যকরী ভূমিকা। কিন্তু সবাইকে চমককে দিয়েই এই এওয়ার্ড জিতেলিনে মেসি।

২০১৮-২০১৯ মৌসুমে লিওনেল মেসি ছিলেন অপ্রতিরোধ্য। ঘরোয়া ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলদাতাও ছিলেন মেসি। ৩৬ গোল করা মেসির সবচেয়ে কাছে থাকা কাইলিয়ান এমবাপে লক্ষ্যভেদ করেছিলেন ৩৩ বার। বার্সেলোনা এবং আর্জেন্টিনার হয়ে গেল মৌসুমে মোট ৫৪টি ম্যাচে ৫১ গোল করেছিলেন মেসি আর সেই সাথে আছে ২২টি এসিস্টও।

বর্ষসেরা হওয়ার দৌড়ে মেসি পেয়েছেন মোট ৪৬ পয়েন্ট, ভ্যান ডাইক দ্বিতীয় হয়ে পেয়েছেন ৩৮ পয়েন্ট আর তৃতীয় হওয়া ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো পেয়ছেন ৩৬ পয়েন্ট। ২০০৯, ২০১০, ২০১১, ২০১২ ও ২০১৫ সালেও বর্ষসেরা হয়েছিলেন মেসি। সে সময় ফ্রাঞ্চ ফুটবল ফেডারেশন আর ফিফা একসঙ্গে মিলিয়ে ঘোষণা করা হতো ফিফা ব্যালন ডি অর।

ফিফার বর্ষসেরা কোচ হয়েছেন লিভারপুলের ইয়ুর্গেন ক্লপ। পেপ গার্দিওলা ও মাউরিসিও পোচেত্তিনোকে পেছনে ফেলে চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ী কোচ জিতে নিয়েছেন পুরস্কারটি। সেরা গোলরক্ষক হয়েছেন লিভারপুলেরই আলিসন বেকার। ফিফার বর্ষসেরা মহিলা খেলোয়াড় হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের মেগান র‌্যাপিনো। আর বর্ষসেরা মহিলা কোচ হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রকে বিশ্বকাপ জেতানো জিল এলিস।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here