নিউজিল্যান্ড ও একটি বিশ্বকাপ-হাহাকারের মহাকাব্য

0
22

১৯৭১ সালে মেলবোর্নে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার টেস্ট খেলাটি বৃষ্টির কারণে চারদিন খেলার অনুপযুক্ত ছিল। নির্ধারিত চূড়ান্ত ও পঞ্চম দিনে প্রথমবারের মতো একদিনের আন্তর্জাতিক খেলা আয়োজন করা হয়। উত্তেজিত দর্শকদের সামলাতে কর্তৃপক্ষ চল্লিশ ওভারের খেলা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়। তখন ৮-বলে এক ওভার গণ্য করা হতো।এ সফলতা ও জনপ্রিয়তাকে পুঁজি করে ইংল্যান্ডসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশে ঘরোয়াভিত্তিতে একদিনের প্রতিযোগিতা আয়োজনের প্রেক্ষিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ ক্রিকেট বিশ্বকাপ আয়োজনের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করতে থাকেন। ১৯৭৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রবর্তনের মাধ্যমে শুরু হয়। প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত ক্রিকেটের বৃহৎ এ প্রতিযোগিতা ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তখন এ বিশ্বকাপের নামকরণ করা হয়েছিল প্রুডেন্সিয়াল বিশ্বকাপ । এরই ধারাবাহিকতায় প্রতি ৪ বছর পর পর বিশ্বকাপ ক্রিকেট অনুষ্ঠিত হয়। এবার ও ইংল্যান্ড বসতে যাচ্ছে এর ১২ তম অাসর। অাজ দল পরিচিতি তে অালোচ্য দল এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার নিউজিল্যান্ড।

বিশ্বকাপের আসরে সবচেয়ে ধারাবাহিক দল গুলোর একটি নিউজিল্যান্ড। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ছয়বার সেমিফাইনাল খেলার রেকর্ড রয়েছে কিউইদের। তবে ২০১৫ সালের সর্বশেষ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মত বিশ্বকাপ ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছিল ব্র্যান্ডন ম্যাককালামের নিউজিল্যান্ড। গতবারের মত পরিস্কার ফেভারিট না হলেও শক্তিমত্তায় পিছিয়ে নেই কেন উইলিয়ামসনের নিউজিল্যান্ড। সর্বদা দল হিসেবে খেলে আসা কিউইরা নিজেদের পরিকল্পনা অনুযায়ী সামর্থ্যের সবটুকু দেয়ার জন্য জনপ্রিয়।

কিউই ব্যাটিং অর্ডারের দায়িত্ব সামলানোর দায়িত্বে থাকবেন বিধ্বংসী ওপেনার মার্টিন গাপটিল। গত বিশ্বকাপে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানোর রেকর্ড আছে এই ওপেনারের। সম্প্রতি বাংলাদেশের বিপক্ষে পর পর দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তিনি। ওপেনিংয়ে গাপটিলকে সঙ্গ দিতে দেখা যাবে কলিন মুনরো অথবা টম ল্যাথামকে।মুনরোর ফর্ম নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকলেও নিজের দিনে প্রতিপক্ষকে গুড়িয়ে দেয়ার সামর্থ্য রাখেন তিনি। অন্যদিকে টম ল্যাথাম কিউই টপ অর্ডারে স্থিতিশীলতা এনে দিতে সক্ষম। দেখার বিষয় নিউজিল্যান্ড কোন কম্বিনেশন বেঁছে নেয়। বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান কেন উইলিয়ামসন তিন নম্বরে দলের ব্যাটিং নিয়ন্ত্রণ করবেন। চার নম্বরে এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের একজন, রস টেইলর কিউই ব্যাটিং অর্ডারে চার নম্বরের দায়িত্ব পালন করবেন। নিউজিল্যান্ডের সাফল্যের অনেকাংশ অধিনায়ক উইলিয়ামসন ও টেইলরের ওপর নির্ভর করবে। তরুণ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান হেনরি নিকোলসের সাথে মিডেল অর্ডারের দায়িত্ব সামলাবেন অলরাউন্ডার জিমি নিশাম। লোয়ার অর্ডারে ঝড় তোলার দায়িত্বে থাকবেন আরেক অলরাউন্ডার কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম।

টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্ট…এই বিশেষজ্ঞ বোলার নিউজিল্যান্ডের বোলিং আক্রমণের মূল চালিকাশক্তি। ম্যাট হেনরি, লকি ফার্গুসনের একজন তৃতীয় পেসার হিসেবে একাদশে সুযোগ করে নিবেন। স্পিন আক্রমণের নেতৃত্বে থাকবেন মিচেল স্যান্টনার, বাড়তি স্পিনার হিসেবে স্কোয়াডে আছেন লেগ স্পিনার ইশ সোধি।


নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপ সাফল্য অনেকাংশে নির্ভর করবে কেন উইলিয়ামসন, রস টেইলর, টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্টের পারফর্মেন্সের ওপর। ২০১৫ বিশ্বকাপে সাউদি-বোল্ট জুটি নিউজিল্যান্ডে ফাইনালে তুলতে মুখ্য ভূমিকা রেখেছিল। এবারও একই দায়িত্ব সামলাতে হবে এই দুই পেস বোলারকে।
বিশ্বকাপ সাফল্য

দলটি ১৯৭৫ সালে বিশ্বকাপ ক্রিকেট
প্রতিযোগিতা প্রবর্তনের পর ২০১১ পর্যন্ত
তারা মোট ছয়বার সেমি-ফাইনাল পর্বে উত্তীর্ণ হয়। কিন্তু প্রত্যেকবারই পরাভূত হয়ে প্রতিযোগিতা থেকে বিদায় নেয়। ২০১৫ বিশ্বকাপ ঘরের মাঠে ফাইনালে উঠেও স্বপ্নভঙ্গ হয়। গ্রুপপর্বে এ-গ্রুপে ছয় খেলার সবকটিতেই নিউজিল্যান্ড দল জয়লাভ করে শীর্ষস্থান অর্জন করে। দলটি শ্রীলংকা, স্কটল্যান্ড, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশকে পরাজিত করে। ওয়েলিংটন রিজিওন্যাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত কোয়ার্টার-ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৪৩ রানে পরাজিত করে সেমি-ফাইনালে পদার্পণ করে। খেলায় মার্টিন গাপটিল নিজস্ব সর্বোচ্চ ২৩৭* রান করেন যা বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ও একদিনের আন্তর্জাতিকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত সংগ্রহ।এরপর দলটি ইডেন পার্কে অনুষ্ঠিত সেমি-ফাইনালে দক্ষিন আফ্রিকা দলের বিপক্ষে ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ৪ উইকেটে জয় পেয়ে নিউজিল্যান্ড দল প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে। খেলায় গ্রান্ট এলিয়ট জয়সূচক রান করেন ছক্কা হাঁকিয়ে।* ২৯ মার্চ মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ৯৩,০১৩ দর্শকের সমাগমে ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়। প্রথমে ব্যাট করে নিউজিল্যান্ড ৪৫ ওভারে ১৮৩ করে। জবাবে ৩ উইকেট অস্ট্রেলিয়া ১৮৬ করে। ৭ উইকেটের জয়ে অস্ট্রেলিয়া ৫ম বার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়। অার নিউজিল্যান্ড ১ম বারের মত রানার্স-আপ হয়।
বিশ্বকাপ স্কোয়াডঃ

কেইন উইলিয়ামসন(অধিনায়ক), মার্টিন গাপটিল, হেনরি নিকলস, রস টেলর, টম লাথাম, কলিন মানরো, টম ব্লান্ডেল, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, মিচেল স্যান্টনার, জিমি নিশম, ইশ সোধি, ম্যাট হেনরি, লকি ফার্গুসন, টিম সাউদি, ট্রেন্ট বোল্ট

নিজের দিনে প্রতিপক্ষকে গুড়িয়ে দেওয়ার সামর্থ্য নিউজিল্যান্ডের এই দলের বেশীরভাগ খেলোয়াড়ের। তারপরও বিশ্বকাপে দলের এক্স-ফ্যাক্টর হতে পারে এমন খেলোয়াড়দের মধ্যে কেন উইলিয়ামসন, রস টেইলর, ট্রেন্ট বোল্ট অন্যতম।


কেইন উইলিয়ামসন
২৮ বছর বয়সী কেন উইলিয়ামসন এবারের বিশ্বকাপের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ক্রিকেটে নিজের আধিপত্যের স্ট্যাম্প পুঁতে ফেলতে চাইবেন। ২০১৫ বিশ্বকাপে কিউই কাপ্তান ব্রেন্ডন ম্যাককালাম তিন বিভাগেই দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।
দলকে বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে দিতে ম্যাককালামের নেতৃত্ব বড় ভূমিকা রেখেছিল। এখন পর্যন্ত ১৩৯ ওয়ানডেতে সাড়ে পাঁচ হাজার রান করা উইলিয়ামসনের কাছেও
কিউই সমর্থকদের তেমন কিছুই চাওয়া থাকবে। ব্যাট হাতে ও অধিনায়ক হিসেবে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে ১১টি ওয়ানডে সেঞ্চুরির মালিক উইলিয়ামসনকে।

রস টেইলর
৩৫ বছর বয়সী রস টেইলরকে নিউজিল্যান্ড ব্যাটিং অর্ডারের স্তম্ভ বললে ভুল হবে না। ২১৮ ওয়ানডে খেলা টেইলর নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের সকল রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন। ৪৮ গড় ও ৮৩ স্ট্রাইক রেটে রান তোলা টেইলর এখন পর্যন্ত নিউজিল্যান্ড ইতিহাসের সর্বোচ্চ ২০টি সেঞ্চুরির মালিক। নামের পাশে ইতিমধ্যেই আট হাজার রান আছে এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের। ক্যারিয়ারের পড়ন্ত বেলায় এসে নিজের সামর্থ্যের সবটুকু বিশ্বকাপের জন্য জমিয়ে রাখতে চাইবেন রস টেইলর। যার কারণে বিশ্বকাপে টেইলরের ব্যাটে আলাদা নজর থাকবে।
ট্রেন্ট বোল্ট
গত বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি বোলার ট্রেন্ট বোল্ট এবারও একই পারফর্মেন্স দিতে চাইবেন। ইংলিশ কন্ডিশনে গতি ও সুইং এর মিশেলে প্রতিপক্ষ দলের টপ অর্ডারে কাঁপুনি ধরাতে চাইবেন বিশ্বের অন্যতম সেরা পেসার বোল্ট। এখন পর্যন্ত ৭৯ ওয়ানডে খেলে ১৪৭ উইকেট শিকার করেছেন তিনি।
লেখক – মাহীন আহমেদ রাহী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here