টানা দুই জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে চট্টগ্রাম আবাহনী

0
176

একের পর এক গোল করেই চলেছেন গাম্বিয়ান স্ট্রাইকার মামাদো বাহ। চট্টগ্রাম আবাহনীর এই ফুটবলার বৃহস্পতিবারও (আজ) দলকে দারুণ এক জয় উপহার দিলেন। তার গোলে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস অ্যান্ড সোসাইটিকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে স্বাধীনতা কাপের কোয়ার্টার-ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের ক্লাবটি। এই নিয়ে টুর্নামেন্টে তিন গোল করলেন মামাদো বাহ। তিনিই সবার উপরে অবস্থান করছেন।

‘বি’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নোফেল স্পোর্টিংকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল। এরপর এই গ্রুপের ম্যাচের মোহামেডান-রহমতগঞ্জ গোল শূন্য ড্র করে। সামনের ম্যাচে মোহামেডানের সঙ্গে হারলেও আর সমস্যা নেই চট্টগ্রাম আবাহনীর। ৬ পয়েন্ট সংগ্রহ করে শীর্ষে অবস্থান করছে তারা। অন্যদিকে মোহামেডানকে নকআউট পর্বে খেলতে হলে কেবল চট্টগ্রাম আবাহনীকেই নয়, হারাতে হবে নোফেলকেও। দুই ম্যাচে একটি করে হার ও ড্রয়ে ১ পয়েন্ট রহমতগঞ্জের। পরের ম্যাচে নোফেলকে হারালেও রহমতগঞ্জের পক্ষে শেষ আট খেলা অনেকটাই অনিশ্চিত।

চট্টগ্রাম আবাহনী জিতলেও খারাপ খেলেনি রহমতগঞ্জ। ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত আগের ম্যাচে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে আসা রহমতগঞ্জ। ডি-বক্সের ভেতর থেকে মিডফিল্ডার রকিবুল ইসলামের নেওয়া শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ফেরান গোলরক্ষক মোহাম্মদ নেহাল। প্রথমার্ধের ২০তম মিনিটে সেরা সুযোগটি নষ্ট হয় রহমতগঞ্জের। সতীর্থের ব্যাক পাসে মিডফিল্ডার ফয়সাল আহমেদের শট গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে ক্রস বারে লেগে ফিরে। দূর্ভাগ্য রহমতগঞ্জের। চট্টগ্রাম আবাহনী এদিক থেকে অনেক ভাগ্যবান। ম্যাচের ৩৬তম মিনিটে কৌশিক বড়ুয়ার কর্নারে হেডে গোল করেন গাম্বিয়ার ফরোয়ার্ড মামাদো বাহ। দুই ম্যাচে এটি তার তৃতীয় গোল। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে সিও জুনাপিওর ক্রসে সাব্বির আহমেদের হেড নেহালের গ্লাভসে জমে গেলে হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে রহমতগঞ্জ।

গতবার স্বাধীনতা কাপে রানার্সআপ হয়েছিল চট্টগ্রাম আবাহনী। দেখা যাক, এবার কতদূর যেতে পারে ২০১৬ সালের স্বাধীনতা কাপজয়ীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here