জয়েই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে চায় বাংলাদেশের কিশোররা

0
327
নেপাল ম্যাচ সামনে রেখে বাংলাদেশের কিশোরদের অনুশীলন। ছবি: সংগৃহীত

ছেলেদের ফুটবলে অমানিশার অন্ধকার ধীরে ধীরে কাটতে শুরু করেছে। জাতীয় দল বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপেই এর কিছুটা নজির স্থাপন করেছিল। এতদিন বয়সভিত্তিক দলগুলোর মধ্যে মেয়েরাই দুর্দান্ত জয় উপহার দিচ্ছিল। এবার কিশোররাও সেই নিজেদের সামর্থ্যের প্রমাণ দিতে শুরু করেছে। নেপালে চলমান ছেলেদের সাফ অনুর্ধ-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই প্রতিপক্ষের জালে গোলোৎসব করেছে বাংলাদেশের কিশোররা। নিশ্চিত করেছে সেমিফাইনাল। এবার গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লড়াই।

‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে মালদ্বীপকে ৯-০ গোলে উড়িয়ে এক খেলা হাতে রেখেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। এবার গ্রুপ সেরা হওয়ার মিশন মেহেদী হাসানদের। এ লক্ষ্যে আজ দুপুরে স্বাগতিক নেপালের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশের কিশোররা। নেপালের ললিতপুরের আনফা কমপ্লেক্সের এই ম্যাচে ড্র করলেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে পারবেন মেহেদী হাসানরা। স্বাগতিক নেপালও প্রথম ম্যাচ জিতে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে। মালদ্বীপকে তারা হারিয়েছে ৪-০ গোলে। অন্যদিকে বাংলাদেশ ৯-০ গোলের জয় পেয়েছে মালদ্বীপের বিপক্ষে। গোল ব্যবধানে অনেকটা এগিয়ে থাকায় সুবিধাজনক স্থানে থেকেই নেপালের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশর কিশোররা। বাংলাদেশ অবশ্য ম্যাচটা জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই সেমিফাইনাল খেলতে চায়।

বাংলাদেশ কিশোর দলের কোচ মোস্তফা আনোয়ার পারভেজ ম্যাচটি সামনে রেখে বলেন, প্রথম ম্যাচ বড় ব্যবধানে জিতে ছেলেদের আত্মবিশ্বাস আরও বেড়েছে। সবাই জানে ড্র করলেই গ্রুপসেরা হওয়া যাবে। কিন্তু ছেলেরা ড্র নয় জয়ের জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে। আশা করছি জয় দিয়েই সেমিফাইনালের প্রস্তুতি সারতে পারব। শেষ চারে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ এখনো ঠিক হয়নি। বি গ্রুপে এরই মধ্যে টানা দুই ম্যাচ জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে পাকিস্তান। আজ বাংলাদেশ নেপালের বিপক্ষে হার এড়াতে পারলে ভারত-ভুটান ম্যাচের জয়ী দলই সেমিতে মেহেদী হাসানদের মুখোমুখি হবে।

২০১৫ সালে নিজেদের মাটিতে এই আসরের শিরোপা জেতা বাংলাদেশ পরের আসরে (২০১৭) শিরোপা ধরে রাখতে পারেনি। গত বছর সেমিতে হারা বাংলার বালকেরা হয়েছিল তৃতীয়। হারানো সেই সাম্রাজ্য পুনরুদ্ধারের মিশনে এবার শুরুটা অসাধারণ হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here