চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ফাইনালে আজ রাতে নামছে অলরেডস ও স্পার্সরা

0
69

ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসর চ্যাম্পিয়নস লীগ ফুটবল। গত তিন আসরেই এই টুর্ণামেন্টের শিরোপা উঠেছিল স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদের ঘরে। তবে এবার মাদ্রিদ অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ২০১৮-১৯ মৌসুমের ফাইনালে দর্শক হিসেবেই থাকতে হচ্ছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের। ১০৯৯ দিন পট মাদ্রিদের ইউরোপ সেরা হওয়ার অবসান ঘটাতে আজ চ্যাম্পিয়নস লীগের ফাইনালে মুখোমুখি হবে দুই ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল ও টটেনহ্যাম হটস্প্যার। অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের ঘরের মাঠ ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে বাংলাদেশ সময় রাত ১ টায় মুখোমুখি হবে দুই দল।

মৌসুমের শুরু থেকেই চ্যাম্পিয়নস লীগের অন্যতম ফেভারিট হিসেবে ধরা হচ্ছিল ইয়ুর্গেন ক্লপের লিভারপুলকে। গেলো আসরেও ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা আছে তার দলের। তবে রিয়ালের কাছে ৩-১ গোলে হেরে সেবার স্বপ্ন ভঙ্গের কষ্ট নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় অল রেডসদের। এই মৌসুমের শুরু থেকেই অন্যতম ফেভারিটের তকমা টা সাথে নিয়ে দারুণ ফুটবল উপহার দিয়ে এসেছে সালাহ -মানে-ফিরমিনোদের নিয়ে গড়া লিভারপুল। ইপিএল এর শিরোপা ম্যানচেস্টার সিটির কাছে ১ পয়েন্টের ব্যাবধানে হারার ক্ষত সাথে গেলো বারের না পারার আক্ষেপ মিটাতেই মাঠে নামবে লিভারপুল।

ফাইনালে লিভারপুলের অনুপ্রেরণা হিসেবে বাড়তি আত্মবিশ্বাস যোগাবে সেমিফাইনালের ফিরতি লেগে বার্সার সাথে ৩-০ প্রথমে লেগের হারের পর ৪-০ গোলে দ্বিতীয় লেগ জয় পাওয়া। তাও দলের সেরা দুই খেলোয়াড় ফিরমিনো, সালাহকে ছাড়া। ইয়ুর্গেন ক্লপের সব শিষ্যরাই আছেন দারুন ছন্দে। সালাহ, আর সাদিও মানে ইপিএলের যৌথভাবে সর্বোচ্চ গোল দাতা। তবে ফাইনালে ভাগ্য বরাবরই সাথে থাকেনা লিভারপুল বসের। এর আগেও ক্লপ বেশ কয়েকবার শিরোপার কাছে গিয়ে স্বাদ পাওয়া হয়নি। তবে এ যাত্রায় আক্ষেপ মিটবে এমনটাই আশা ক্লপ ও লিভারপুল সমর্থকদের।

তবে অপর দিকে মরিনিয়ো পচেত্তিনোর টটেনহ্যামের ক্ষেত্রে বিষয়টা পুরোই অন্যরকম। শুরু থেকেই ফেভারিটদের তালিকার আশেপাশেও ছিলোনা এই ইংলিশ দলটি। তারাই এখন ফাইনাল খেলবে। ফাইনালে তাদের আত্মবিশ্বাস যোগাবে কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যানসিটি আর সেমিফাইনালে আয়াক্সের সাথে পিছিয়ে থেকেও ম্যাচ জয় করাটা।
বিশেষ করে সেমিফাইনালে আয়াক্সের সাথে দুই লেগ মিলিয়ে ৩-০ পিছিয়ে থেকেও শেষ মিনিটে গিয়ে ৩-৩ ড্রয়ে ফাইনালে উঠাটা বাড়তি অনুপ্রেরণা দিবে কেইনা,সন,এরিকসনদের। তবে কিছুটা হলেও পচেত্তিনোকে আশাবাদী করবে দলের সেরা খেলোয়াড়দের ছাপিয়ে সেমিতে লুকাস মৌরার হ্যাট্রিক।
তবে ফাইনালে স্পটলাইট থাকবে ইনজুরি থেকে ফিরা হ্যারি কেইন,আর দলের আরেক দুই প্রাণভোমরা সন ও এরিকসনের উপর।

সর্বশেষ ২০০৮ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড – চেলসির মুখোমুখিতে অল ইংলিশ চ্যাম্পিয়নস লীগ ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়েছিলো। ১১ বছর পর আবারো লিভারপুল – টটেনহ্যাম ম্যাচ দিয়ে অল ইংলিশ চ্যাম্পিয়নস লীগ ফাইনাল মহারণ হতে চলেছে। লিভারপুল এর আগে ৫ বার শিরোপার স্বাদ পেলেও টটেনহ্যামের এটি প্রথম চ্যাম্পিয়নস লীগ ফাইনাল। সর্বশেষ ২০০৫ সালে চ্যাম্পিয়নস লীগ জিতেছিল অল রেডসরা।

সর্বশেষ ২০১২ সালে লীগ কাপ জয়টাই ছিলো লিভারপুলের সর্বেশেষ ট্রফি জয়। স্পার্সদেরটা তারও আগে ২০০৮ সালে লীগ কাপ জয়। ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় দু’দল এর আগে মুখোমুখি হয়নি কোনো সময়ই।

কাগজে কলকে লিভারপুল কিছুটা এগিয়ে থাকলেও ফাইনালে এসব খুব বেশি প্রভাব ফেলেনা এটা যেমন ঠিক তেমনি এক দিকে সালাহ – মানে- ফিরমিনোদের নিয়ে গড়া লিভারপুল নাকি অন্য দিকে কেইন-সন-এরিকসনদের নিয়ে গড়া টটেনহ্যাম কে হাসে শেষ হাসি সেটাই দেখার বিষয়। তবে সবকিছু ছাপিয়ে দারুন একটা ফুটবল ম্যাচ উপহার দিবে দু’দল এমনটাই চাওয়া ফুটবল-ভক্তদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here