ফিফা র্যানিকং এর ১০০ তে রয়েছে ফিলিস্তিন আর ১২০ এ তাজিকিস্তান। তবে আজ ফাইনালে র্যাকিং কোনো প্রভাবই ফেলবে না। কারো সুখস্মৃতি আর কারো আত্মবিশ্বাস কাজ করবে আজ।

আজ তাজিকরাই বেশি আত্মবিশ্বাসী হবে। এর আগে ২০০৬ সালে এএফসি কাপ এই বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে জিতেছিলো তারা।এবার তারা বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপও জিততে চায়। তাদের কোচ মনে করেন ঢাকার মাঠ তাদের জন্য সৌভাগ্যের মাঠ।

অন্যদিকে ফিলিস্তিন এক টুকরো মাটি ছাড় দিবে না। তাজিকিস্তানের সাথে শেষ তিন দেখায় একবারও হারেনি ফিলিস্তিন। এটাই তাদের অনেক বড় আত্মবিশ্বাস। আজ ঢাকায় ম্যাচটি জিতলে ফিলিস্তিন নিজেদের ঘরে তৃতীয় আর্ন্তজাতিক শিরোপা তুলবে।

খেলোয়াড়দের শক্তি, উচ্চতা নিয়ে দুইদলই সমান বলতে হবে। দুইটি দলই প্রায় সমান বলতে যায়। সময় বুঝে আক্রমন, খেলায় পরিবর্তন অথবা পাসিং যেকোনো কিছুইতেই তারা কাছাকাছি। দুইদলের আক্রমনভাগ খুবই শক্তিশালী তাই বলা যায় খেলা হবে সমানে সমানে।

যেকোনো কিছু হতে পারে আজ। ফলে শিরোপা কার হাতে উঠবে সেটিই এখন দেখার অপেক্ষা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here