আরেকটি ফাইনাল,আরেকটি স্বপ্নযাত্রা। এর আগে যতো গুলো ফাইনালে বাংলাদেশ খেলেছে ফিরতে হয়েছে খালি হাতে আর বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ যদি হয় ভারত তাহলে সেখানে স্নায়ুচাপের খেলা একটু বেশিই থাকে।

সবার আগে ফাইনাল নিশ্চিত করা ভারত আছে দারুণ ছন্দে,ওদের রিজার্ভ বেঞ্চযে কতোটা শক্তিশালী তার প্রমান মিলেছে আফগানিস্তান ম্যাচে। নিয়মিত ওপেনার ধাওয়ান রোহিতের জায়গায় খেলতে নামা রাহূল রায়ুডুও ভারতের জন্য দারুণ শুরু এনে দিয়েছিলেন।

বোলিং লাইন-আপে ভূবেনশ্বর,বুমরাহ,চাহালরা দিচ্ছে বাড়তি সুবিধা। অপরদিকে বাংলাদেশ শেষ দুই ম্যাচ জিতে ফিরেছে নিজেদের ছন্দে।

বাংলাদেশে দলের যতো চিন্তা ছন্নছাড়া টপ অর্ডার,ভারতের টপ অর্ডার যেখানে ম্যাচের ভিত গড়ে দেয় সেখানে বাংলাদেশের ম্যাচ গড়তে হয় মিডিল অর্ডারকে।

ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেন ‘বাংলাদেশের জন্য একটা ট্রফি দরকার আছে যাতে করে তরুণরা অনুপ্রানিত হতে পারে তবে সেই ট্রফিটাযে এখনই না পেলে হবেনা এমননা,আর তামিম যেদিন এক হাতে ব্যাট করতে নেমেছিলো সেদিনই আমার এশিয়া কাপ পাওয়া হয়ে গেছে’

এশিয়া কাপে বাংলাদেশ যেবার প্রথম ফাইনাল খেলে সেবার পাকিস্তানের কাছে বাংলাদেশকে হারতে হয়েছিলো দুই রানে,চোখের পানিতে ভেসেছিলো ক্রিকেটাররা আর ভাসিয়েছিলো মনের কোনে ট্রফি জেতার স্বপ্ন নিয়ে খেলা দেখতে বসা দর্শকদের। শেষ ফাইনালে বাংলাদেশকে হারতে হয় এই ভারতে বিপক্ষে,সেবার ফরমেটটা ছিলো টি-টোয়েন্টির।

এই এশিয়া কাপে বাংলাদেশ অনেক কিছুতেই সবাইকে অবাক করেছে,তামিমের বীরত্বকাব্য থেকে শুরু করে পাজরের ব্যাথা নিয়ে মুশির ব্যাটিং আর মাশরাফির চোখে আটকে থাকা ঐ ক্যাচ! এবার ফাইনালে যদি বাংলাদেশ অবাক করা কিছু করতে পারে তাহলে অধোরা এশিয়া কাপ ট্রফি জেতার স্বপ্নটা পূরন হতেও পারে। বাংলায় একটা প্রবাদ আছে ”দানে দানে তিন দান”,এবার দানটা সেই তিনের,অপেক্ষাটা শুধু মেলার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here